ভালোবাসা দিবস কত তারিখ২০২৪ সালে কেন ও পালন করা হয়


উৎসব-প্রেমী বাংলাদেশী জনগণ মহামারীর মধ্যেও সবচেয়ে প্রত্যাশিত ঋতু বসন্ত (বসন্ত) এর প্রথম দিন এবং সোমবার বিশ্বব্যাপী পালিত ভ্যালেন্টাইন্স ডে উদযাপন করছে বলে ঢাকা একটি রঙিন চেহারা পেয়েছে।

বিগত কয়েক বছর ধরে, মানুষ, বিশেষ করে বাংলাদেশে, ফেব্রুয়ারি মাসে দুই দিনের উৎসব উদযাপন করতে অভ্যস্ত হয়ে উঠেছে, যার 13 তারিখটি পহেলা ফাল্গুনের দিন এবং 14 তারিখটি ভ্যালেন্টাইন্স ডে হিসাবে। তবে বাংলা ক্যালেন্ডারে পরিবর্তনের কারণে ১৪ ফেব্রুয়ারি উভয় দিনই পালিত হচ্ছে।

ফাল্গুন বাংলা ক্যালেন্ডারের একাদশ মাস এবং ঋতুর প্রথম মাস, বসন্ত, ছয়টি ঋতুর রাজা যেটি উষ্ণ রোদ, ফুল ফোটানো এবং পাখিদের নাচ ফিরিয়ে আনে।

বিশ্বের অন্যান্য অংশের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশীরাও তাদের প্রিয়জনদের সাথে ভ্যালেন্টাইন্স ডে উদযাপন করে। ভ্যালেন্টাইনস ডে, যাকে সেন্ট ভ্যালেন্টাইন্স ডে বা সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের উৎসবও বলা হয়, একটি প্রাচীন রোমান ঐতিহ্য যা ইউরোপীয় দেশগুলিতে যুগ যুগ ধরে পালিত হয়ে আসছে।

আজকাল এটি দ্রুত বিশ্বায়নের জন্য বাংলাদেশ সহ এশিয়ায় ব্যাপকভাবে পালিত হয়।

শীতের শুষ্কতার পর আবার নতুন পাতা বের হতে শুরু করে এবং প্রকৃতি নতুন রঙিন ফুল যেমন শিমুল, পলাশ ও গাঁদা দিয়ে ডালে সাজায়।

ফাল্গুন প্রকৃতি ও জীবন উভয় ক্ষেত্রেই আনন্দ ও রঙ নিয়ে আসে। প্রকৃতির সবকিছুই তারুণ্য বা সতেজতার ছাপ দেয়, যেন প্রকৃতি নতুন জন্ম নেয়।

জাতীয় বসন্ত উৎসব উদযাপন পরিষদ রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের উন্মুক্ত মঞ্চে কোরাস, নৃত্য ও রং বাজানোর মধ্য দিয়ে ঐতিহ্যবাহী ‘বশান্ত উৎসব ১৪২৮’ এর আয়োজন করে।

একই দিনে ভালোবাসা দিবস ও পহেলা ফাল্গুন উদযাপন করায় তাদের লাভ কমে যাওয়ায় বাংলা একাডেমির পদক্ষেপে খুশি নন ফুল ব্যবসায়ীরা। তবে এদিন তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নেবেন বলে আশাবাদী তারা।

লাল-হলুদ পোশাকে এবং হাতে ফুল, শত শত তরুণ-তরুণী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের বকুলতলায় ভিড় করছে বসন্ত উৎসব উদযাপনের কেন্দ্রস্থল, গান, কবিতা আবৃত্তি ও নাচের মাধ্যমে স্বাগত জানাতে।

আরো পড়ুনঃ   সৌদি আরব মেয়েদের ইসলামিক নাম অর্থ সহ নাম আ থেকে ইয়া ২০২৪

তরুণরাও শিক্ষক-ছাত্র কেন্দ্র, আর্টস ফ্যাকাল্টি, কার্জন হল, ইউনিভার্সিটি মলে জড়ো হচ্ছে জমকালো পোশাক পরে একে অপরের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশের জন্য ফুল ও উপহার বিনিময় করছে।

বসন্তকে বরণ করে নিতে রাজধানীতে রয়েছে নানা আয়োজন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দিনব্যাপী বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন সংগীতানুষ্ঠানসহ নানা কর্মসূচি পালন করবে।

বিশেষ দিবস উপলক্ষে দেশের প্রায় সর্বত্র বিভিন্ন রেস্তোরাঁ গ্রাহকদের জন্য বিশেষ অফারের ব্যবস্থা করেছে। এছাড়াও, বিভিন্ন উপহারের দোকান ক্রেতাদের খুশি করতে বিশেষভাবে ছাড়ের মূল্য, অফার এবং বিভিন্ন উপহার সামগ্রীর সাথে অতিরিক্ত বিক্রয় করতে চাইছে। ফুলের বাজারগুলো দিনভর লাল গোলাপের মজুদে ব্যস্ত।

ভালোবাসা দিবস কত তারিখ

ভালোবাসা দিবস প্রতি বছর ১৪ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে মহা আনন্দে উদযাপিত হয় হয়।২০২৪ সালে ভালোবাসা দিবস আসছে বৃহস্পতিবার বার ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রতিদিন বিভিন্ন ভাবে উদযাপিত হবে ।

ভালোবাসা দিবস কেন পালন করা হয়

ভালোবাসা দিবস হলো প্রেমিক-প্রেমিকা, বন্ধু-বান্ধব, স্বামী-স্ত্রী, মা-সন্তান, ছাত্র-শিক্ষকসহ বিভিন্ন বন্ধনে আবদ্ধ মানুষের জন্য একে অপরের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করার একটি বিশেষ দিন।এই দিনে মানুষ তাদের প্রিয়জনদের প্রতি ভালোবাসার কথা সরাসরি বলতে পারে, যা অন্য সময় বলা কঠিন হতে পারে।ফুল, চকোলেট, কার্ড, উপহার ইত্যাদি আদান-প্রদানের মাধ্যমেও ভালোবাসা প্রকাশ করা হয়।

১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে কি দিবস

বাংলাদেশে ১৪ ফেব্রুয়ারিকে দুটি ভিন্ন দিক থেকে দেখা হয়।

প্রথমত, এটি ভালোবাসা দিবস হিসেবে পালিত হয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতোই বাংলাদেশের মানুষও এদিন তাদের প্রিয়জনদের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করে। ফুল, চকোলেট, কার্ড এবং অন্যান্য উপহার বিনিময় করা হয়। প্রেমিক-প্রেমিকারা একে অপরের সাথে সময় কাটায় এবং রেস্তোরাঁয় গিয়ে ডিনার করে।

দ্বিতীয়ত, ১৪ ফেব্রুয়ারি স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবস হিসেবেও পরিচিত। ১৯৮৩ সালে এই দিনে তৎকালীন স্বৈরাচারী শাসক হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে নেমেছিলেন শিক্ষার্থীরা। পুলিশের গুলিতে সেদিন বহু শিক্ষার্থী নিহত হয়। এই ঘটনার স্মরণে এবং স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে প্রতি বছর এই দিনটি পালন করা হয়।

আরো পড়ুনঃ   সৌদি আরবের আকামা চেক করার নতুন নিয়ম ২০২৪

১৯৮৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা জেনারেল এরশাদের সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে একটি গণমিছিলের আয়োজন করে। ছাত্ররা গণতন্ত্রের পুনরুদ্ধার এবং স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে স্লোগান দেয়। পুলিশ মিছিলে লাঠিচার্জ করে এবং গুলি চালায়। এতে বহু ছাত্র নিহত ও আহত হয়।

এই ঘটনার পর ১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিনে পরিণত হয়। প্রতি বছর এই দিনটিতে স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে এবং গণতন্ত্রের জন্য শহীদদের স্মরণে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এই দুটি দিক ছাড়াও, ১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে সুন্দরবন দিবস হিসেবেও পালিত হয়। ২০০১ সালে এই দিনটিতে প্রথম জাতীয় সুন্দরবন সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য রক্ষা এবং এর টেকসই ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

তবে, সুন্দরবন দিবস হিসেবে ১৪ ফেব্রুয়ারি তেমন ব্যাপকভাবে পালিত হয় না। ভালোবাসা দিবস এবং স্বৈরাচার প্রতিরোধ দিবসই এই দিনটির প্রধান আকর্ষণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *