অপারেশন সার্চ লাইট কি কেন ও পরিচালিত হয় নেতৃত্ব দেন কে

আস সালামু আলাইকুম এই পোস্টে জানতে পারবেন অপারেশন সার্চলাইট কি কেন পরিচালিত হয় অপারেশন সার্চলাইটের নেতৃত্ব দেন যে সার্চলাইটের নীল নকশা কবে করা হয়

ভূমিকা

অপারেশন সার্চলাইট কি ছিলো

অপারেশন সার্চলাইট পাকিস্তানি শাসকদের স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে স্বাধীনতাকামী বাঙালিদের আন্দোলনকে দমন করার লক্ষ্যে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তান সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত নির্মম ও নৃশংস সশস্ত্র অভিযান।

সামরিক কর্তৃপক্ষ এটিকে ‘অপারেশন সার্চলাইট’ বলে অভিহিত করেছে। এই অপারেশনের উদ্দেশ্য ছিল ঢাকাসহ তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রধান শহরগুলোতে বিশিষ্ট আওয়ামী লীগ নেতা, ছাত্রনেতা ও বাঙালি বুদ্ধিজীবীদের গ্রেফতার বা হত্যা করা,

সামরিক, আধা-সামরিক ও পুলিশ বাহিনীর বাঙালি কর্মীদের নিরস্ত্র করা এবং অস্ত্রাগার দখল করা। , রেডিও স্টেশন এবং টেলিফোন এক্সচেঞ্জ, এর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে অসহযোগ আন্দোলনকে নির্মমভাবে দমন করে

পূর্ব পাকিস্তান প্রদেশের নিয়ন্ত্রণ নেওয়া । 25 মার্চ রাত 11-30 টা থেকে মে মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত প্রদেশের সমস্ত বড় শহরে ‘অপারেশন সার্চলাইট’-এর অধীনে সামরিক অভিযান চালানো হচ্ছিল।

অপারেশন সার্চলাইট 26 মার্চ 13 ঘন্টা চালু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে আলোচনায় কোনো ইতিবাচক ও বাস্তব ফলাফল না পেয়ে জনগণকে সর্বাত্মক সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হওয়ার জন্য একটি স্পষ্ট আহ্বান জানান।

সেই রাতেই ঢাকার বিভিন্ন স্থানে স্বাধীনতাকামী বাঙালিরা প্রতিরোধ গড়ে তোলে। লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খান ও এএকে নিয়াজীর জনসংযোগ কর্মকর্তা মেজর সিদ্দিক সালেক মন্তব্য করেন যে,

বাঙালিরা শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারার আগেই পাকিস্তানি বাহিনী ঢাকার বিভিন্ন স্থানে

পৌঁছানোর জন্য একদিন আগে অর্থাৎ ১১-৩০-এ অপারেশনের সময়সূচী পরিবর্তন করে। 25 মার্চ বিকাল। কিন্তু পাকিস্তান সরকার কর্তৃক ৫ আগস্ট প্রকাশিত একটি শ্বেতপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে যে,

আওয়ামী লীগের ২৬ মার্চ ভোরে সশস্ত্র বিপ্লব করার পরিকল্পনা ছিল। শ্বেতপত্রের এই তথ্য অপারেশনটিকে একদিনের মধ্যে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য সহায়ক কারণ হতে পারে।

মেজর জেনারেল খাদিম হোসেন রাজা, চতুর্দশ ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং এবং মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলী খান, পঞ্চাশতম ডিভিশনের জিওসি, 22 ফেব্রুয়ারি 1971 সালে একটি সেনা অভিযান, অপারেশন সার্চলাইট নামে একটি সিদ্ধান্তে আসেন।

17 মার্চ চিফ অফ স্টাফ জেনারেল আবদুল হামিদ খানের নির্দেশ অনুসারে, জেনারেল খাদিম হোসেন রাজা পরের দিন ঢাকা সেনানিবাসে জিওসির কার্যালয়ে অপারেশন সার্চলাইটের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করেন। রাও ফরমান আলী নিজেই এই পাঁচ পৃষ্ঠার অপারেশন প্ল্যান তৈরি করেন।

পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য জেনারেল হামিদ, জেনারেল এও মিথী, কর্নেল সাদুল্লাহ 24-25 মার্চ অপারেশনের প্রস্তুতি পরিদর্শনের জন্য হেলিকপ্টারে বিভিন্ন সেনানিবাস পরিদর্শন করেন। স্থির হয় ২৫ মার্চের ১৩ ঘণ্টায় জেনারেল রাও ফরমান আলী ঢাকা অভিযানে নেতৃত্ব দেবেন।

জেনারেল খাদিম রাজা প্রদেশের অন্যান্য অঞ্চলে অভিযান পরিচালনা করবেন। লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খান ৩১টি ফিল্ড কমান্ড সহ তার পদে থাকা অপারেশনের ১টি অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ করবেন। এছাড়া এই অপারেশন সফল করার জন্য

ইয়াহিয়া খানের দুই ঘনিষ্ঠ অফিসার মেজর জেনারেল ইফতেখার জানজুয়া এবং মেজর জেনারেল এও মিথীকে এই সময়ের মধ্যে ঢাকায় তলব করা হয়।

অপারেশন সার্চলাইটের অধীনে নিম্নলিখিত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্ধারিত ছিল:

  • সমগ্র পূর্ব পাকিস্তানে একযোগে অভিযান শুরু করা হবে।
  • সর্বোচ্চ সংখ্যক রাজনীতিবিদ ও ছাত্রনেতা, শিক্ষক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের চরমপন্থী কর্মীদের গ্রেফতার করতে হবে।
  • ঢাকার অপারেশন শতভাগ সফল করতে হবে। সে লক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে দখল করতে হবে।
  • সেনানিবাসের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।
  • সব ধরনের অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক যোগাযোগ ব্যাহত করতে হবে। বিদেশী কনস্যুলেটে টেলিফোন এক্সচেঞ্জ, রেডিও, টিভি, টেলিপ্রিন্টার সার্ভিস, ট্রান্সমিটার ব্যাহত করতে হবে।
  • ইপিআরের সৈন্যদের নিরস্ত্র করতে হবে এবং তাদের জায়গায় পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্যদের অস্ত্রাগারে টহল দেওয়ার জন্য নিযুক্ত করা হবে এবং অস্ত্রাগারের নিয়ন্ত্রণ তাদের উপর ন্যস্ত করা হবে।
  • প্রথম ধাপে অপারেশনাল জোন হবে ঢাকা, খুলনা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, যশোর, রংপুর, সৈয়দপুর ও সিলেট। প্রয়োজনে চট্টগ্রাম, সিলেট, যশোর, রংপুর ও কুমিল্লায় বিমানের মাধ্যমে অপারেশন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে।
    ঢাকা শহরের উপর তাদের নিয়ন্ত্রণকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে পূর্বোক্ত কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য পাক সামরিক কর্তৃপক্ষ নিম্নলিখিত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।
  • পিলখানায় অবস্থানরত 22-বালুচ রেজিমেন্ট পাঁচ হাজার বাঙালি ইপিআর সৈন্যকে নিরস্ত্র করবে এবং তাদের রেডিও সেন্টার দখল করবে।
  • ৩২-পাঞ্জাব রেজিমেন্ট রাজারবাগ পুলিশ লাইনে এক হাজার বাঙালি পুলিশকে নিরস্ত্র করবে যা আওয়ামী লীগের সশস্ত্র শক্তির প্রধান উৎস।
  • 18-পাঞ্জাব রেজিমেন্ট নবাবপুরের হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ এলাকা এবং পুরান ঢাকার অন্যান্য অংশে আক্রমণ চালাবে।
  • 22 বেলুচ, 18 এবং 32 পাঞ্জাব রেজিমেন্টের নির্বাচিত সৈন্যদের একটি দল ইকবাল হল (জহুরুল হক হল), জগন্নাথ হল এবং বুয়েটের লিয়াকত হল আক্রমণ করবে , যা আওয়ামী লীগ বিদ্রোহীদের শক্তির কেন্দ্র হিসাবে পরিচিত।
  • স্পেশাল সার্ভিস গ্রুপের কমান্ডো সৈন্যদের এক প্লাটুন শেখ মুজিবুর রহমানের বাড়িতে আক্রমণ করবে এবং তাকে গ্রেফতার করবে।
  • ফিল্ড রেজিমেন্ট দ্বিতীয় রাজধানী এবং পার্শ্ববর্তী জনবসতি (মিরপুর-মোহাম্মদপুর) নিয়ন্ত্রণ করবে।
  • শক্তি প্রদর্শনের জন্য, এম 24 ট্যাঙ্কগুলির একটি ছোট স্কোয়াড্রন রাস্তায় চলাচল করবে এবং প্রয়োজনে গোলাগুলি শুরু করবে।
  • উল্লিখিত সৈন্যরা সড়কে যে কোনো ধরনের ব্যারিকেড বা প্রতিরোধ ধ্বংস করবে এবং তালিকাভুক্ত রাজনীতিবিদদের বাড়িতে অভিযান চালাবে।
    রাত 11-30 টায় পাকিস্তানি সেনারা সেনানিবাস থেকে বেরিয়ে আসে, ফার্ম গেট এলাকায় বিক্ষোভকারী বাঙালিদের উপর নির্বিচারে আক্রমণ চালায় এবং এভাবে অপারেশন সার্চলাইট শুরু করে। তারপর সময়সূচি অনুযায়ী তারা পিলখানা ও রাজারবাগে একযোগে হামলা চালায়।
  • সকাল 1-30টায় তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তার বাসভবন থেকে গ্রেফতার করে। গভীর রাতে তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ইকবাল হল, জগন্নাথ হল, রোকেয়া হলসহ শিক্ষকদের
  • আবাসিক কোয়ার্টারে অভিযান চালিয়ে নয়জন শিক্ষকসহ বিপুল সংখ্যক ছাত্রকে হত্যা করে। একই পরিকল্পনায় পুরান ঢাকা, তেজগাঁও, ইন্দিরা রোড, মিরপুর, মোহাম্মদপুর, ঢাকা বিমানবন্দর, গণকটুলি, ধানমন্ডি, কলাবাগান, কাঁঠালবাগান প্রভৃতি স্থানে ভয়াবহ হামলা চালানো হয় এবং একই
  • রাতে চট্টগ্রামে গুলিতে বহু মানুষ নিহত ও আহত হয়। সশস্ত্র বাহিনী. সেনানিবাসে তাদের পোস্ট থাকা ‘অপারেশন সার্চলাইট’-এর অধীনে মার্চ মাসের মধ্যেই পাকসেনারা নির্বিচারে আক্রমণ চালায় এবং বিপর্যয় সৃষ্টি করে।
  • বাঙালির আন্দোলনে সমর্থন জানানোয় ইত্তেফাক, সংবাদ, পিপলসের মতো দৈনিকের অফিসে আগুন দেওয়া হয়। আগুনে পুড়িয়ে মারা হয় বেশ কিছু সাংবাদিক, গণমাধ্যমকর্মী।
আরো পড়ুনঃ   মধু দিয়ে রুপচর্চা খাওয়ার নিয়ম উপকারিতা ও অপকারিতা ক্ষতিকর দিক

২৫ মার্চ গণহত্যার প্রাক্কালে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান করাচির উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন। কিন্তু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে সংলাপের জন্য ঢাকায় আসা পাকিস্তান পিপলস পার্টির প্রেসিডেন্ট জুলফিকার আলী ভুট্টো ঢাকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল থেকে অভিযানটি পর্যবেক্ষণ করেন।

তার প্রস্থানের প্রাক্কালে পরের দিন, ভুট্টো আগের রাতে সেনাবাহিনীর পদক্ষেপের উচ্চ প্রশংসা করেন এবং মন্তব্য করেন, ‘আল্লাহকে ধন্যবাদ যে পাকিস্তান রক্ষা করা যেতে পারে’। ইয়াহিয়া খানসহ সব সেনা কর্মকর্তা সেনা অভিযানে অভিনন্দন জানান।

এমনকি পরবর্তী ৫ আগস্ট পাকিস্তান সরকার কর্তৃক প্রকাশিত শ্বেতপত্রেও ২৫ মার্চের সামরিক অভিযানকে ‘অনিবার্য’ বলে অভিহিত করা হয়।

২৫ মার্চ রাতে অপারেশন সার্চলাইটের নিচে হতাহতের সঠিক পরিসংখ্যান অনুমান করা যায়নি। ২৫ মার্চ অপারেশনের আগেই বিদেশি সাংবাদিকদের দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়।

বাড়িতে সংবাদপত্রে কঠোর সেন্সরশিপের কারণে অপারেশন সম্পর্কে উল্লেখযোগ্য কিছুই সংগ্রহ করা যায়নি। ঝুঁকি নিয়ে আত্মগোপনে থাকা

তিন বিদেশী সাংবাদিক আর্নল্ড জেটলাইন, মাইকেল লরেন্ট এবং সাইমন ড্রিং-এর রিপোর্ট থেকে সেই নির্মম রাতের নির্মম বর্বরতার কিছু খবর পাওয়া যায়।

২৯ মার্চ ডেইলি টেলিগ্রাফে ডেটলাইন ঢাকা শিরোনামে প্রকাশিত সাইমন ড্রিং-এর প্রতিবেদন থেকে জানা যায় যে ওই রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক এলাকায় ইকবাল হলের ২০০ ছাত্র, শিক্ষক ও তাদের পরিবারের ১২ নম্বর সদস্যকে হত্যা করা হয়।

পুরান ঢাকায় ৭০০ মানুষ পুড়ে মারা যায়। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সূত্র থেকে সংগৃহীত তথ্য থেকে জানা যায়, ওই নির্মম রাতে ঢাকা শহরেই সাত হাজার বাঙালিকে হত্যা করা হয়

অপারেশন সার্চলাইট কি

অপারেশন সার্চলাইট ছিল ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তান সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত একটি পরিকল্পিত গণহত্যা। এর লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশের মু

ক্তিযুদ্ধের পূর্বে সংঘটিত বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে দমন করা, বিশেষ করে আওয়ামী লীগ এবং এর সমর্থকদের নিশ্চিহ্ন করা।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব, কর্মী এবং সমর্থকদের গ্রেপ্তার ও হত্যা করা।বাঙালি বুদ্ধিজীবী, শিক্ষক, সাংবাদিক, এবং শিক্ষার্থীদের নিরপেক্ষ করা

আরো পড়ুনঃ   সাজেক ভ্যালি কোথায় কোন জেলায় অবস্থিত ভ্রমণ খরচ কত ২০২৪

।পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের মনে ভীতি সঞ্চার করা এবং তাদের প্রতিরোধের ইচ্ছা ভেঙে ফেলা।

অভিযানটি লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খানের নেতৃত্বে পাকিস্তান সেনাবাহিনী পরিচালনা করে।
পূর্ব পাকিস্তানের সকল প্রধান শহর ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সেনাবাহিনী অভিযান চালায়।অভিযানে নিরস্ত্র

বেসামরিক জনগণ, বিশেষ করে ছাত্র, যুবক, এবং হিন্দুদের উপর নির্মম নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ড চালানো হয়।অপারেশন সার্চলাইট বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সূচনা করে।

অভিযানের ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষ নিহত হয় এবং আরও অনেকে ভারতে পালিয়ে যায়।

অভিযানটি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের তীব্র সমালোচনার সম্মুখীন হয়।অপারেশন সার্চলাইট বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি বেদনাদায়ক অধ্যায়।

এই অভিযানের মাধ্যমে পাকিস্তান সেনাবাহিনী যে নির্মমতা ও বর্বরতা প্রদর্শন করেছিল তা কখনোই ভোলা যাবে না।

অপারেশন সার্চলাইট কেন পরিচালিত হয

অপারেশন সার্চলাইট পরিচালিত হওয়ার পেছনে বেশ কিছু কারণ ছিল। এর মধ্যে প্রধান কারণগুলো হলো:

১) বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পূর্বে সংঘটিত বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে দমন করা:

১৯৭১ সালের মার্চ মাসে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পূর্বে পূর্ব পাকিস্তানে দীর্ঘদিন ধরে বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলন চলছিল।

এই আন্দোলনের মূল দাবি ছিল পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন। পাকিস্তান সরকার এই আন্দোলনকে দমন করার জন্য অপারেশন সার্চলাইট পরিচালনা করে।

২) আওয়ামী লীগ এবং এর সমর্থকদের নিশ্চিহ্ন করা:

১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয়লাভ করে। এই জয়ের ফলে পূর্ব পাকিস্তানে বাঙালি জাতীয়তাবাদের আন্দোলন আরও তীব্রতর হয়। পাকিস্তান সরকার আওয়ামী লীগকে তাদের শাসনের জন্য হুমকি হিসেবে দেখে।

তাই অপারেশন সার্চলাইটের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব, কর্মী এবং সমর্থকদের গ্রেপ্তার ও হত্যা করার চেষ্টা করে।

৩) বাঙালি বুদ্ধিজীবী, শিক্ষক, সাংবাদিক, এবং শিক্ষার্থীদের নিরপেক্ষ করা:

পাকিস্তান সরকার মনে করেছিল যে বাঙালি বুদ্ধিজীবী, শিক্ষক, সাংবাদিক, এবং শিক্ষার্থীরা বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের মূল চালিকাশক্তি। তাই অপারেশন সার্চলাইটের মাধ্যমে তাদেরকে নিরপেক্ষ করার চেষ্টা করে।

৪) পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের মনে ভীতি সঞ্চার করা এবং তাদের প্রতিরোধের ইচ্ছা ভেঙে ফেলা:

পাকিস্তান সরকার অপারেশন সার্চলাইটের মাধ্যমে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের মনে ভীতি সঞ্চার করতে চেয়েছিল। তাদের লক্ষ্য ছিল জনগণকে ভয় দেখিয়ে তাদের প্রতিরোধের ইচ্ছা ভেঙে ফেলা।

অপারেশন সার্চলাইট ছিল পাকিস্তান সরকারের একটি বর্বরোচিত পদক্ষেপ। এই অভিযানের মাধ্যমে তারা বাঙালি জাতির উপর যে নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল তা কখনোই ভোলা যাবে না।

অপারেশন সার্চলাইটের নেতৃত্ব দেন কে

অপারেশন সার্চলাইটের সার্বিক নেতৃত্বে ছিলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খান, যিনি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর জিওসি (General Officer Commanding) ছিলেন।

তবে, অভিযানটি বিভিন্ন স্তরে পরিচালিত হয়েছিল এবং নিম্নলিখিত ব্যক্তিরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন:

ঢাকা:

মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলী: ঢাকা গ্যারিসনের কমান্ডার এবং অভিযানের স্থানীয় কমান্ডার।
চট্টগ্রাম:

মেজর জেনারেল খাদেম হোসেন রাজা: চট্টগ্রাম গ্যারিসনের কমান্ডার।
সিলেট:

ব্রিগেডিয়ার জাভেদ আখতার: সিলেট গ্যারিসনের কমান্ডার।
রাজশাহী:

**ব্রিগেডিয়ার আব্দুল হামিদ খান: রাজশাহী গ্যারিসনের কমান্ডার।
ময়মনসিংহ:

**ব্রিগেডিয়ার **মোহাম্মদ ইউসুফ: ময়মনসিংহ গ্যারিসনের কমান্ডার।
কুমিল্লা:

**কর্নেল **আব্দুল মজিদ: কুমিল্লা সেনানিবাসের কমান্ডার।
বরিশাল:

**লেফটেন্যান্ট কর্নেল **আব্দুল গফুর: বরিশাল সেনানিবাসের কমান্ডার।
এই ব্যক্তিরা ছাড়াও আরও অনেক সেনা অফিসার এবং সৈন্য অপারেশন সার্চলাইটে অংশ গ্রহণ করেছিল।

মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে অপারেশন সার্চলাইট ছিল একটি বর্বরোচিত গণহত্যা এবং এর জন্য সকল যারা জড়িত ছিল তারা যুদ্ধাপরাধী।

অপারেশন সার্চলাইটের নীলনকশা করা হয় কবে

অপারেশন সার্চলাইটের নীলনকশা কবে করা হয়েছিল তা স্পষ্টভাবে জানা যায় না। তবে ধারণা করা হয় যে এটি ১৯৭১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে করা হয়েছিল।

কারণ:

১৯৭০ সালের নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর আওয়ামী লীগের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা: পাকিস্তান সরকার আওয়ামী লীগকে তাদের শাসনের জন্য হুমকি হিসেবে দেখে।

আরো পড়ুনঃ   ভালোবাসা দিবস কত তারিখ২০২৪ সালে কেন ও পালন করা হয়

শেখ মুজিবুর রহমানের ৬ দফা দাবি: পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে আন্দোলন তীব্রতর হয়।

বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের দমন করার প্রয়োজনীয়তা: পাকিস্তান সরকার মনে করেছিল যে এই আন্দোলন তাদের একতন্ত্রের জন্য হুমকি।
নীলনকশার ধারণা:

গোপন তথ্য সংগ্রহ: পাকিস্তান সরকার বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতা, ছাত্র নেতা, বুদ্ধিজীবী এবং সাধারণ জনগণের উপর গোপন তথ্য সংগ্রহ করে।

সন্দেহভাজনদের তালিকা তৈরি: পাকিস্তান সরকার যাদেরকে তাদের শাসনের জন্য হুমকি হিসেবে দেখে তাদের একটি তালিকা তৈরি করে।

গণহত্যার পরিকল্পনা: পাকিস্তান সেনাবাহিনী এই তালিকাভুক্ত ব্যক্তিদের হত্যা এবং অন্যান্য জনগণকে ভীত করার জন্য একটি পরিকল্পনা তৈরি করে।

অপারেশন সার্চলাইটের নীলনকশা ছিল একটি বর্বরোচিত পরিকল্পনা যার ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষ নিহত এবং অনেকে ভারতে পালিয়ে যায়।

অপারেশন সার্চলাইটের হত্যাকাণ্ডের খবর বিশ্বে কিভাবে ছড়িয়েছিল

অপারেশন সার্চলাইটের হত্যাকাণ্ডের খবর বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্রে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল:

১. সাংবাদিকদের ভূমিকা:

কিছু সাহসী সাংবাদিক, যেমন সিডনি শ্যানবার্গ (নিউ ইয়র্ক টাইমস), **ডেভিড ফ্রোস্ট (BBC), **মার্ক গ্যালিন (ফ্রান্স-প্রেস), **অ্যান্থনি মাসকারেনহাস (রয়টার্স) ঢাকায় অবস্থান করে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দ্বারা চালানো অত্যাচারের প্রত্যক্ষদর্শী হন।

তারা তাদের প্রতিবেদন এবং ছবি বিশ্বের বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচার করেন।এই প্রতিবেদন গুলি বিশ্ব নেতৃবৃন্দ এবং জনগণের মধ্যে গভীর ক্রোধ এবং উদ্বেগ সৃষ্টি করে।

২. পূর্ব পাকিস্তান থেকে পালিয়ে যাওয়া শরণার্থীদের ভূমিকা:

লক্ষ লক্ষ মানুষ পাকিস্তান সেনাবাহিনীর নিপীড়ন থেকে পালিয়ে ভারতে আশ্রয় নেয়।
তারা তাদের সাথে অত্যাচারের ভয়াবহ কাহিনী নিয়ে যায়।এই শরণার্থীদের কথা বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে অপারেশন সার্চলাইটের বর্বরতা তুলে ধরে।

৩. আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির ভূমিকা:

সংযুক্ত রাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা এবং অন্যান্য দেশ পাকিস্তান সরকারের উপর চাপ প্রয়োগ করে গণহত্যা বন্ধ করার জন্য সংযুক্ত জাতিসংঘ

একটি প্রস্তাব পাস করে যাতে পাকিস্তান সরকারকে পূর্ব পাকিস্তানে শান্তি পুনরুদ্ধার করার জন্য আহ্বান জানানো হয়।
৪. আন্তর্জাতিক জনমত:

বিশ্ব নেতৃবৃন্দ এবং জনগণ পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দ্বারা চালানো গণহত্যার নিন্দা জানায়।বিভিন্ন দেশে প্রতিবাদ অভিযান হয় এবং পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অস্ত্র embargo দাবি করা হয়।

এই সকল ঘটনার ফলে অপারেশন সার্চলাইটের হত্যাকাণ্ডের খবর বিশ্বে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে এবং এটি একটি আন্তর্জাতিক বিষয় হয়ে ওঠে।

**তবে মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে পাকিস্তান সরকার

এই অত্যাচারের জন্য কখনো ই দায় গ্রহণ করে নি এবং এখনও এই ঘটনাকে “অভ্যন্তরী

অপারেশন সার্চলাইট এর ৪ টি ক্ষতিকর দিক


১. ব্যাপক প্রাণহানি:

অপারেশন সার্চলাইটের ফলে লক্ষ লক্ষ মানুষ নিহত হয়।

নির্দিষ্ট সংখ্যা বিতর্কিত হলেও, ধারণা করা হয় যে ৩০০,০০০ থেকে ৩ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছিল।

২. ব্যাপক নির্যাতন ও নিপীড়ন:

পাকিস্তান সেনাবাহিনী নিরস্ত্র বেসামরিক জনগণের উপর নির্মম নির্যাতন চালায়। এর মধ্যে ছিল ধর্ষণ, লুণ্ঠন, ঘরবাড়ি পোড়ানো এবং মানসিক নির্যাতন।

৩. শরণার্থী সংকট:

অপারেশন সার্চলাইটের ভয়াবহতার কারণে লক্ষ লক্ষ মানুষ ভারতে পালিয়ে যায়। এর ফলে ভারতে একটি বিরাট শরণার্থী সংকট তৈরি হয়।

৪. দীর্ঘমেয়াদী সামাজিক ও অর্থনৈতিক, ক্ষতি:

অপারেশন সার্চলাইট বাংলাদেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক কাঠামোতে দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি করে। ব্যাপক প্রাণহানি ও সম্পত্তির ক্ষয়ের ফলে দেশটি পিছিয়ে পড়ে।

অতিরিক্ত ক্ষতিকর দিক:

বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে দমন করার চেষ্টা: অপারেশন সার্চলাইট বাংলাদেশের স্বাধীনতা আকাঙ্ক্ষাকে দমন করার চেষ্টা করে।

বুদ্ধিজীবীদের হত্যা: অপারেশন সার্চলাইটের সময় পাকিস্তান সেনাবাহিনী বাংলাদেশের অনেক গুরুত্বপূর্ণ বুদ্ধিজীবী হত্যা করে।মুক্তিযুদ্ধের সূচনা: অপারেশন সার্চলাইট বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সূচনা করে।

মানবাধিকার লঙ্ঘন: অপারেশন সার্চলাইট মানবাধিকার লঙ্ঘনের একটি চরম উদাহরণ।অপারেশন সার্চলাইট ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসের একটি কলঙ্কিত অধ্যায়।

এই অভিযানের ফলে বাংলাদেশের জনগণ যে ভয়াবহ কষ্ট এবং যন্ত্রণা সহ্য করেছে তা কখনোই ভোলা যাবে না।

উপসংহার:আজকের আলোচনায় আশা করি বুঝতে পারলেন

অপারেশন সার্চলাইট কি অপারেশন সার্চলাইট কেন পরিচালিত হয় অপারেশন সার্চলাইটের নেতৃত্ব দেন কে
অপারেশন সার্চলাইটের নীলনকশা করা হয় কবে অপারেশন

সার্চলাইটের হত্যাকাণ্ডের খবর বিশ্বে কিভাবে ছড়িয়েছি অপারেশন সার্চলাইট এর ৪ টি ক্ষতিকর দিক ইত্যাদি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *